Home : বাংলাদেশ : অপরাধ : রাজধানীতে অবৈধ পলিথিন ব্যবসার রমরমা বানিজ্য,দেখার কেউনাই

রাজধানীতে অবৈধ পলিথিন ব্যবসার রমরমা বানিজ্য,দেখার কেউনাই

 আশরাফুল আলমঃ

রাজধানী সহ সারা দেশে চলছে অবৈধ পলিথিনের রমরমা বানিজ্য। আমাদের দেশে ওয়েস্টিস পলিথিনের ব্যাগ উৎপাদন ও ব্যবহারের যে নিষিদ্ধ আইন রয়েছে তার সঠিক বাস্তবায়ন না থাকায় অসাধু ব্যাবসায়ীরা অবাধে নিষিদ্ধ পলিথিন উৎপাদন ও বাজারজাত করন করে আসছে। বর্তমানে পলিথিনের কাঁচামাল দিয়ে এক ধরনের টিসু পলিথিন তৈরি করা হচ্ছে। উৎপাদন কারীরা বলছে এটা পরিবেশ বান্ধব কিন্তু বাস্তবে পলিথিন পরিবেশের জন্য মারাত্মক ক্ষতি কর।সরকার ২০০২ সালে পলিথিন উৎপাদন ও বিপনন ও ব্যবহার নিষিদ্ধ করছে। এই ঘোষণা বাস্তবায়নের লক্ষে পরিবেশ সংরক্ষন আইন ১৯৯৫ এর ৬(ক) ধারাটি সংযোজন করা হয়। আইনের ১৫ ধারায় বলা হয়েছে যদি কোন ব্যাক্তি নিষিদ্ধ পলিথিন সামগ্রী উৎপাদন, আমদানি ওবাজারজাত করন করে তাহলে ১০ বছরের কারাদণ্ড বা ১০ লাখ টাকা জরিমানা। এমনকি উভয় দন্ডে দন্ডিত হতে পারে। একই সঙ্গে পলিথিনের কাচামাল অপব্যবহার রোধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহন করা দরকার বলে মনে করেন পরিবেশ বিদরা। পলিথিনের বিকল্প পরিবেশ বন্ধব কাগজ চট ও কাপড়ের শপিং ব্যাগ ২০০২ সাল থেকে বাজারে সুফল পেতে শুরু করে।তারই ধারা বাহিকতায় ২০১০ সালে আরেকটি আইন পাশ করেন।আইনটি পলিথিনের বদলে পাটের ব্যাগের ব্যবহারের জন্য জারি করা হয়।পাট জাত মড়োকের বাধ্যতামুলক ব্যবহার আইন -২০১০। পলিথিনের ক্ষতিকর কর দিকগুলোর বিষয়ে নগর বাসীকে সচেতন করতে হবে।সরকারি সূত্রানুযায়ী চলতি বছর এখন পর্যন্ত মাত্র ৮৩ টি পলিথিন বিরোধী অভিযান চালানো হয়েছে।পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড.সুলতান আহম্মেদ বলেন,ভ্রাম্যমান আদালতের ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার কারীদের সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদন্ড ওজরিমানা করার এখতিয়ার থাকলেও তা পয়োগ করা হয়না। কিছু দিন আগে সরেজমিনে প্রতিবেদন আনতে গেলে রাজধানীর পুরান ঢাকার লালবাগ, হাজারীবাগ

About Moniruzzaman Monir

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*