Home : অথর্নীতি : তাক লাগানো আবিষ্কার, বাতাসে করোনা মারতে মেশিন তৈরি করলেন বাঙালি গবেষক

তাক লাগানো আবিষ্কার, বাতাসে করোনা মারতে মেশিন তৈরি করলেন বাঙালি গবেষক

এই বুঝি মারণ করোনা ঢুকে পড়ল শরীরে। প্রতি মুহূর্তে এই আতঙ্কেই রয়েছেন দেশবাসী। মুখে মাস্ক, বারবার হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার আর ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধোয়া এখন রোজনামচার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কাজে পরিণত হয়েছে। করোনা ঠেকাতে শুধু নিজেই নয়, নিজের আশপাশ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখাও অত্যন্ত জরুরি। সেই কারণেই রাস্তায় জেট-স্প্রে করা হচ্ছে সরকারের তরফে। তবে এবার আইআইটি খড়্গপুর ও এইমসের দুই গবেষক পরিবেশকে ভাইরাসমুক্ত করতে আরও কার্যকরী মেশিন তৈরি করে ফেলেছেন।

আইআইটি খড়্গপুরের ডা. দেবায়ন সাহা এবং এইমসের শশী রঞ্জনের অনবদ্য আবিষ্কার করোনা মোকাবিলায় বিশেষ ভূমিকা পালন করবে বলেই মনে করা হচ্ছে। তাঁদের তৈরি যন্ত্রটির নাম এয়ালেন্স মাইনাস করোনা (Airlens Minus Corona)। মারণ ভাইরাসকে সমূলে উপড়ে ফেলার ক্ষমতা রয়েছে এই অভিনব যন্ত্রটির। ষাটের দশকের একটি সিনেমায় দেখানো রোবটের মতোই দেখতে তাঁদের তৈরি যন্ত্রটি। কীভাবে কাজ করে এই যন্ত্র?

দেবায়ন ও শশী জানাচ্ছেন, এই যন্ত্রটি থেকে ফোঁটা ফোঁটা জল বেরিয়ে বাতাসকে পরিষ্কার করবে। তবে সাধারণ জল নয়, ব্যবহৃত হবে আয়নযুক্ত জল। এই জল COVID-19-এর সংস্পর্শে এলেই ভাইরাসে থাকা প্রোটিন নিস্তেজ হয়ে পড়বে। ফলে করোনার কাঁটা আর ছড়িয়ে পড়তে পারবে না। বাজার-ঘাট, বাসস্ট্যান্ড কিংবা হাসপাতাল চত্বরে যেখানে মানুষ ভিড় জমাচ্ছেন, সেই সমস্ত জায়গাকে পরিষ্কার করার আদর্শ যন্ত্র এই এয়ালেন্স মাইনাস করোনা। শশী রঞ্জনের কথায়, “বৈজ্ঞানিক গবেষণার পর বুঝেছি অক্সিডেশনের (ইলেকট্রনের পরিমাণ কমিয়ে) মাধ্যমেই গোটা শহরকে সবচেয়ে ভালভাবে পরিসুদ্ধ করা সম্ভব।” প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে এমনভাবে সেই আয়নযুক্ত জল তৈরি হয়েছে যা করোনার ক্ষমতা কমিয়ে তাকে মেরে ফেলতে পারে।

এক্ষেত্রে জানিয়ে রাখা ভাল যে অ্যালকোহলযুক্ত স্যানিটাইজারও কিন্তু একইভাবে করোনাকে অজেকো করার ক্ষমতা রাখে। তাহলে এই আবিষ্কারের গুরুত্ব কোথায়? দেবায়ন সাহা বলছেন, “নিজের হাত বা বাড়ির আনাচে-কানাচে পরিষ্কারের জন্য স্যানিটাইজার নিঃসন্দেহে কার্যকরী। কিন্তু একটা বড় এলাকা পরিচ্ছন্ন করতে, বলা ভাল করোনামুক্ত করতে এই যন্ত্র বিশেষ ভূমিকা পালন করবে।” অর্থাৎ গোটা দেশে এই যন্ত্র ব্যবহার করা গেলে সুফল মিলবে বলেই আশা গবেষকদ্বয়ের।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

About struggle

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*