Home : বাংলাদেশ : রাজনীতি : ‘বিএনপির অনেক জ্যেষ্ঠ নেতা মৃত্যুর আগে সরকারের নির্যাতনের শিকার’

‘বিএনপির অনেক জ্যেষ্ঠ নেতা মৃত্যুর আগে সরকারের নির্যাতনের শিকার’

সাদেক হোসেন খোকা, তরিকুল ইসলামসহ বিএনপির অনেক জ্যেষ্ঠ নেতা মৃত্যুর আগে সরকারের নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। দলন-নির্যাতনের প্রতিবাদ আর খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার শপথ নিতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান দলটির নেতারা। আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলামের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকের স্মরণসভায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারা এসব কথা বলেন। তরিকুল ইসলাম স্মৃতি সংসদ ওই স্মরণসভার আয়োজন করে। স্মরণসভায় বিএনপির নেতারা বলেন, ‘তরিকুল ইসলাম একজন আদর্শ রাজনীতিবিদ ছিলেন। তাঁর রাজনৈতিক জীবনের পুরোটাই তিনি শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শ অনুসরণ করে গেছেন।’ এ সময় বিরোধী নেতাকর্মীদের ওপর চলমান নির্যাতনের প্রতিবাদ করে তরিকুল ইসলামের আদর্শের রাজনীতি অনুসরণ করতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তাঁরা। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘যারা আমাদের কাছ থেকে চলে যাচ্ছেন, এই চলে যাওয়াটা যদি সুস্থ, স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় হতো আমাদের কিছু বলার ছিল না। কিন্তু আমরা দেখেছি তরিকুল ইসলাম তাঁর দীর্ঘ সংগ্রামী জীবনের বেশিরভাগ সময়ই নির্যাতিত হয়েছেন। যখন তিনি ব্যাধিগ্রস্ত হয়েছেন, ডায়ালাইসিস নিতে হয়েছে, সে সময়ও একটার পর একটা মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। তাঁকে দৌড়াতে হয়েছে ঢাকা ও যশোরে।’ মহাসচিব আরো বলেন, ‘সিপিডি (সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ) বলেছে বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রতিটি স্তম্ভ ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। একদিকে বিচার ব্যবস্থা ধ্বংস, প্রশাসন ধ্বংস। বেগম খালেদা জিয়া এর বিরুদ্ধে সংগ্রাম করছিলেন বলেই তাঁকে কারাগারে যেতে হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘দেশের মানুষের আস্থা রয়েছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ওপরে, তাই তাঁকে আটকে রাখা হয়েছে। আমরা যদি তরিকুল ইসলাম ও সাদেক হোসেন খোকার প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে চাই তাহলে অবশ্যই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আমাদের মুক্ত করতে হবে। তাই বেগম জিয়ার মুক্তি, নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন এবং একটি নির্বাচন কমিশন গঠন করে নির্বাচন করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করাই আমাদের লক্ষ্য। আসুন সে লক্ষ্যে আমরা সবাই আত্মত্যাগ করি।’ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘দেশকে যদি রক্ষা করতে হয় তাহলে মরহুম তরিকুল ইসলামের মতো আমাদের সকলকে সাহসী এবং নীতির প্রতি আপসহীন এবং সংগ্রামী ভূমিকা পালন করতে হবে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘আজ রাজনীতি আর রাজনীতিবিদদের হাতে নেই। রাজনীতি চলে গেছে এখন অর্থ, সন্ত্রাস এবং দুর্বৃত্তদের হাতে। এটা থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। এর একটি মাত্র কারণ হলো সত্যিকার অর্থে দেশে জনপ্রতিনিধিত্বশীল সরকার নেই।’

About struggle

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*