প্রধান মেনু

রবিবার, মে ৫th, ২০১৯

 

হুমকি পাওয়া ব্যক্তিদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক :স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। ফাইল ছবিস্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর কাছে থেকে যেসব বাংলাদেশি নাগরিক হত্যার হুমকি পেয়েছেন, তাঁদের জন্য বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা থাকবে। হুমকির ঝুঁকি মোকাবিলায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে।আজ রোববার দুপুর ১২টার দিকে রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।হত্যার হুমকি পাওয়ায় নিরাপত্তা চেয়ে আজ বেলা সোয়া একটার দিকে ধানমন্ডি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন।ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল লতিফ জানান, সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে দুপুরে মুনতাসীর মামুনের একজন অফিস সহাকরী এসে জিডি করেন।তেজগাঁওয়ের অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের পেছনে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক মহলের ষড়যন্ত্র ছিল, এখনো আছে। তাদের দমন করা গেলেও মূল উৎপাটন করা সম্ভব হয়নি। তারাই মাঝেমধ্যে হুমকি-ধমকির মাধ্যমে আত্মপ্রকাশ করে। কিন্তু তাদের হুমকিতে বাংলাদেশের মানুষ কখনোই ভয় পায় না। কারণ, এ দেশের মানুষ সংগ্রাম করেই আজকের অবস্থানে এসেছে।আল-কায়েদাসমর্থিত বাংলা সাময়িকী লোন উলফের মার্চ সংখ্যায় বাংলাদেশের তিন বিশিষ্ট নাগরিককে হত্যার হুমকি দেওয়া হয়। এ-সংক্রান্ত খবর গতকাল শনিবার বিভিন্ন গণমাধ্যমে আসে।হুমকি পাওয়া তিন নাগরিকের মধ্যে রয়েছেন একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি শাহরিয়ার কবির ও ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন। হুমকি পাওয়া অপরজন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের এক উপদেষ্টা। এ বিষয়ে তিনি গতকালই নিজের নিরাপত্তা চেয়ে ধানমন্ডি থানায় জিডি করেছেন।


বন্ড সুবিধার আওতায় আসছে দেশের কয়েকটি খাত

নিজস্ব প্রতিবেদক :এতোদিন শুধু তৈরি পোশাক খাতকে শতভাগ রফতানিমুখীর জন্য শুল্কমুক্ত বা বন্ড সুবিধার আওতায় কাঁচামাল আমদানির সুবিধা দিয়েছিল সরকার। তবে আগামীতে এগ্রো প্রসেসিং, চামড়াজাত পণ্য, পেপার, কেমিক্যালসহ কয়েকটি খাতকে এর আওতায় আনার উদ্যোগ নিয়েছে।রোববার রাজধানীর ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) অফিসে ‘ইমপ্রুভ ট্রেড অ্যান্ড বন্ডেড ওয়্যারহাউস পলিসিজ’ বিষয়ক কর্মশালায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া এ তথ্য জানান। ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি) এ কর্মশালার আয়োজন করে।এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, তৈরি পোশাক খাতে এতো প্রবৃদ্ধির পেছনে বন্ড সুবিধাসহ বিভিন্ন প্রণোদনার ভূমিকা রয়েছে। বর্তমানে দেশের মোট রফতানির ৮৫ ভাগ আয় আসে তৈরি পোশাক থেকে। পাশাপাশি আমরা অন্যান্য পণ্যের রফতানিও বাড়াতে চায়। এজন্য এগ্রো প্রসেসিং, চামড়াজাত পণ্য, পেপার, কেমিক্যালসহ কয়েক খাতকে বন্ডেড ওয়্যারের আওতায় আনার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।এক্ষত্রে কিছু সমস্যার কথা জনিয়ে তিনি বলেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বন্ড সুবিধার আওতায় কাঁচামাল এনে পণ্য তৈরি করে তা স্থানীয় বাজারে বিক্রি করছে। এতে প্রকৃত উদ্যোক্তা যেমন সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, তেমনি সরকারও রাজস্ব হারাচ্ছে। তাই বন্ড সুবিধার অপব্যবহার রোধে কঠোর নজরদারি শুরু করেছে রাজস্ব বোর্ডের কাস্টম বন্ড কমিশনারেট। ইতোমধ্যে তারা ৫৯টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল ও স্থগিত করেছে । অদূর ভবিষ্যতে বন্ড সুবিধা প্রদানের পুরো সিস্টেম অটোমেশনের আওতায় এনে মনিটরিং করার চিন্তা করছে এনবিআর। এতে এর অপব্যবহার রোধ অনেকাংশে সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।উল্লেখ্য, দেশের শতভাগ রফতানিমুখী প্রতিষ্ঠানকে কাঁচামাল আমদানিতে বন্ড (শুল্কমুক্ত) সুবিধা দেয় সরকার। কিন্তু এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী বন্ড লাইসেন্স নিয়ে এসব কাঁচামাল স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে দেন। দীর্ঘদিন ধরে শুল্কমুক্ত পণ্যের অপব্যবহার করে আসছে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান। এতে সরকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হয়। বন্ড কর্মকর্তারা একাধিকবার সতর্ক এবং বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা নিলেও অপব্যবহার ঠেকানো যাচ্ছে না। অনিয়মে জড়িত প্রতিষ্ঠানগুলোর লাইসেন্স বাতিল করা হচ্ছে।