প্রধান মেনু

বৃহস্পতিবার, জুলাই ১১th, ২০১৯

 

শত কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা আজাদ

মো: মনিরুজ্জামান : কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলা তারাগুনিয়া গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা, কথিত জনতা কো-অপারেটিভ এর স্বত্বাধিকারী খন্দকার আজাদ ওরফে টাউট আজাদ ,গরীব অসহায়, নিরীহ নিম্ন মধ্যবিত্ত ও চাকুরীজীবী জনসাধারণের প্রায় শত কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে এলাকা থেকে আত্মগোপন করেছে বলে সূত্রে জানা যায়। সুদখোর আজাদ পূর্ব কল্পিত ভাবে প্রতারণার ফাঁদ পেতে কথিত জনতা কো-অপারেটিভ মাল্টিপারপাস সুদ কারবারি শুরু করে, তারাগুনিয়া বাজারে ,জামায়াত-বিএনপি ক্যাডারদের ছত্রছায়ায। গ্রাহকদের অতিরিক্ত মুনাফার লাভ দেখিয়ে অভিনব কায়দায় গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় শত কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় খন্দকার আজাদ, ওরফে আজাদ আউট। অসহায় মানুষদের শেষ সম্বল টুকু কেড়ে নয়, আজ তারা পথে বসেছে ,কোথায় যাবে কি করবে, কিভাবে টাকা উদ্ধার করবে কোন হদিসই পাচ্ছে না তারা। অসহায় মানুষদের মা জননী বাংলার অবিসংবাদিত নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আকুল আবেদন দুর্নীতিবাজ দুর্নীতি পরায়ন বিশ্ব প্রতারক দুর্নীতির মহানায়ক খন্দকার আজাদের সমস্ত সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করে সরকার যেন ,অসহায় মানুষের টাকাগুলো ফিরিয়ে দেয়, সেই প্রত্যাশা করে দৌলতপুর সহ বিভিন্ন এলাকার পাওনাদারদরা। জনগণের টাকা আত্মসাৎ করে বর্তমানে রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় প্যারাডো গাড়ি নিয়ে ঘুরে বেড়াতে দেখা গেছে এবং নতুন করে প্রতারণার ফাঁদ পাতার পরিকল্পনা চলছে বলে তথ্য অনুসন্ধানে উঠে এসেছে। এই প্রতারক এর বিরুদ্ধে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর থানায় 58 টি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তথ্য এ পর্যন্ত পাওয়া গেছে, পাওনাদারদের টাকা আদায়ের জন্য আরো মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়। তবে দৌলতপুর বাসির প্রশাসনের কাছে প্রশ্ন এত অভিযোগের পরও কেন তাকে গ্রেফতার করা হচ্ছে না, কি এমন তার পেশী শক্তি। তৃতীয় পর্বে এই দুর্নীতিবাজ প্রতারক এর পিছনে কারা জড়িত সমস্ত সিন্ডিকেট চক্রের নাম প্রকাশ করা হবে।


8


7


6


5


4


2


1


3